দেশে সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্দেশ্যঃ ড. হাছান মাহমুদ
১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০২:০২ অপরাহ্ন


  

  • কাজিপুর/ অন্যান্য:

    দেশে সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্দেশ্যঃ ড. হাছান মাহমুদ
    ৩১ অক্টোবর, ২০১৮ ০৫:৩৬ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    কাজিপুর প্রতিনিধিঃ জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট সংসদ বিলুপ্তির দাবি করে মূলত দেশে সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।  গতকাল সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘যুদ্ধাপরাধী-জঙ্গী-সন্ত্রাস-দুর্নীতিবাজ, গণহত্যাকারী, অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী অপশক্তিদের নিয়ে গঠিত ঐক্য ফ্রন্টের সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও দেশবাসী’ সমাবেশ ও মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

    তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংসদ বাতিলের দাবি করেছে। তারা সংসদ বাতিল করে দেশে সাংবিধানিক শূন্যতা তৈরী করার পায়তারা করছে। তাদের উদ্দেশ্য দেশে বিশেষ পরিস্থিতি তৈরী করা এবং তৃতীয় শক্তিকে ক্ষমতায় আনা।

    ড. কামাল হোসেনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ড. কামাল হোসেন একজন সংবিধান প্রণেতা। কিন্তু তিনি বরাবরই অসাংবিধানিক কথাবার্তা বলে যাচ্ছেন। তিনি এখন আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নয় তিনি বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের দায়িত্ব পালন করছেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সংলাপের আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগকে চিঠি দিয়েছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যারা আছে তারা যুদ্ধাপরাধী, সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজ ও তালেবান-জঙ্গী। তাদের সঙ্গে কোন সংলাপ নয়। সংলাপ করতে চাইলে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দেন। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে কথা বলেন। তারা মূলতঃ আওয়ামী লীগকে সংলাপের চিঠি দিয়ে জনগণকে ধোকা দিচ্ছে।

    আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের উদ্দেশ্য নির্বাচনে অংশগ্রহণ নয়। নির্বাচন বানচাল করা। তবে আওয়ামী লীগ ১৩/১৪ সালের তুলনায় আজকে অনেক শক্তিশালী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক বেশী জনপ্রিয়। আন্তর্জাতিক মিত্ররাও আমাদের সঙ্গে আছেন। তাই চিঠি দিয়ে কোন লাভ হবে না। নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্রে কোন লাভ হবে না। এখন আপনারা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন। আর সেটা না করলে নির্বাচন এলে বুঝতে পারবেন আপনারা হাওয়ার উপরে ভাসছেন। একই সঙ্গে তিনি আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সতর্ক অবস্থানে থাকারও আহ্বান জানান।

    চট্টগ্রামের সমাবেশ সম্পর্কে তিনি বলেন, চট্টগ্রামে সমাবেশ একটি ছোট্ট জায়গার মধ্যে হয়েছে। সেখানে কয়েক হাজার লোক জড়ো হয়েছিল। এই ড. কামাল হোসেনরা কয়েক শত লোকের সামনে বক্তৃতা করার অভ্যাস। কিন্তু চট্টগ্রামে কয়েক হাজার লোক দেখেই মাথা ঠিক নেই।

    বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ সভাপতি চিত্রনায়িকা ফারহানা আমিন নুতন এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সাবেক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এড. শামসুল হক টুকু এম.পি, আওয়ামী লীগ নেতা এড. বলরাম পোদ্দার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ও মুখপাত্র অরুন সরকার রানা, আওয়ামী লীগ নেতা আজাদ খান, জাফর আহমেদ জয়, বিশিষ্ট গীতিকার ও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিকে জোটের কাজিপুর শাখার  সভাপতি শেখ শাহ আলম, অভিনেত্রী বৃষ্টি রাণী সরকার, শম্পা রহমান, পারুল আক্তার লোপা, নাট্যশিল্পী হাবিব উল্লাহ রিপন প্রমুখ।

    স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,কাজিপুর ৩১ অক্টোবর, ২০১৮ ০৫:৩৬ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 68 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    কাজিপুর অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    7644098
    ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০২:০২ অপরাহ্ন