নিজের বেলা ষোল আনা
১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:৫৭ অপরাহ্ন


  

  • জাতীয়/ স্বাধীন/ মুক্তমত:

    নিজের বেলা ষোল আনা
    ০৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০৯:৫৭ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    বউ মা এখনও ঘুম থেকে উঠতে পারনি,নাস্তা বানাবে কখন ?রিপন(দেবর) সাদা রুটি খাবেনা,ওর জন্য পরাটা বানাও,তোমার শ্বশুরের জন্য সাদা রুটি সবজি,আমার জন্য ভুনা খিচুড়ি আর ন্যান্সির(ননদ) জন্য চিকেন ফ্রাই তাড়াতাড়ি করে ফেলো।এগুলা এক আদর্শ শাশুড়ির নির্দেশ তার বাড়িতে বধূ হয়ে আসা এক নারীর প্রতি।সকাল বেলা উপরের বর্ণনা মতে নাস্তা পানি,গোসলের জন্য গরম পানি,স্বামীর সেবা সবকিছু করে বিদ্যালয়ে যান জেনি।বিদ্যালয় শেষে বিকাল বেলা ফিরে আবারো বৈকালী নাস্তা ,চা ইত্যাদি দিয়ে সন্ধ্যায় নিজ বাচ্চাকে নিয়ে পড়তে বসা স্বামীর একান্ত সেবা সবকিছু করেও জেনি মন পাচ্ছেনা শাশুড়ির ।একদিন সকাল ৯ টায় জেনি তার ননদ ন্যান্সিকে ডেকে জিজ্ঞেস করতে গেছে তার জন্য কি নাস্তা বানাবে?শাশুড়ি মা অগ্নিমূর্তি ধারণ করে জেনিকে বলছে ,’’তুমি জানোনা ও ফেসবুক চালিয়ে অনেক রাতে ঘুমিয়েছে ,তাকে কেন ডাকছ?”জেনি শুধু বলেছিল মা আমিও তো অনেক রাতে ঘুমিয়েছিলাম।ভোর ৫ টায় ঊঠে এত কিছু সামাল দিচ্ছি ,আমার কষ্ট টা দেখলেন না?শাশুড়ি উত্তর দেয় মুরুব্বীদের মুখে মুখে কথা? বাবা মা এ আদবকায়দা শেখায়নি।এসব বিষয়ে স্বামী ধনকে জেনি রাতে শেয়ার করলে পরম অসহায় হয়ে বলল,”কি করবে ম্যানেজ করে চল” একদিন বিকেল বেলা হঠাৎ ফেন্সি (ননদ) কাঁদতে কাঁদতে মা এর বাড়িতে এসে হাজির।জেনির শাশুড়ি মা সন্ধ্যায় সবাইকে নিয়ে বসে ফেন্সির চলে আসার কারণ জানতে চায়।ফেন্সি বলে খুব সকালে ঘুম থেকে উঠা লাগে,চার-পাচ রকমের নাস্তা ,শ্বশুর শাশুড়ির গোসলের গরম পানি করে দেয়া,কলেজ পড়ুয়া ননদের জন্য ইচ্ছামত নাস্তা বানানো এগুলা করে আমার সংসার করা সম্ভব নয়।আমি আলাদা হব।জেনির শাশুড়ি রাগান্বিত হয়ে বলে ঐ বলদটা(জামাই) কি করে এসব চোখে দেখেনা।জেনি বিনয়ের সাথে শ্বাশুড়িকে বলে ,”মা আমি একটা কথা বলি?” শ্বাশুড়ি মা বিরক্ত হয়ে বলে,”বল তুমি আবার কি বলবে?”জেনি বলে ,”মা ফেন্সির শ্বশুরবাড়ির লোকজন আগে নাকি ভালই ছিল ,আপনার পরিবারে ছেলের বিয়ে দিয়ে আপনাদের সাথে তাল মিলাতে গিয়ে এগুলো শিখেছে।খুব খারাপ ওরা।আর ঐ যে বলদ জামাইয়ের কথা বললেন,এমন বলদ আপনার ঘরেও আছে মা। “শ্বাশুড়ি আরো রাগান্বিত হয়ে বলল আমি জানতাম তুমি এর চেয়ে ভাল কিছু বলতে পারবেনা।কারণ তোমার বাবা মা তোমাকে তেমন শিক্ষা দেয়নি।জেনি সবার অগোচরে চোখের জল মুছতে মুছতে রান্না ঘরে গিয়ে শুধু বলে,আমার বাবা মা বেঁচে নেই ,ওদের টেনে কথা বলবেন না প্লিজ।আপনাদের মত শাশুড়িরা যেদিন আমাদের মত বউদের নিজের মেয়ের মত করে দেখতে শিখবেন সেদিন আর একান্নবর্তী সংসারে এমন অশান্তির আগুন জ্বলবেনা।ননদিনীদের ও বুঝা উচিৎ তারাও একদিন কারো ঘরের বধূ হবে। লেখক : মনজুর রহমান সাবেক অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) তাড়াশ থানা, সিরাজগঞ্জ।
    স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট, তাড়াশ ০৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০৯:৫৭ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 179 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    জাতীয় অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    7643985
    ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ ০১:৫৭ অপরাহ্ন