শিমুল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর ও বিচার কাজ শুরুর দাবি
২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:১৮ পূর্বাহ্ন


  

  • শাহজাদপুর/ আইন আদালত:

    শিমুল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর ও বিচার কাজ শুরুর দাবি
    ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৭:২৯ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    নিজস্ব প্রতিবেদক : শিমুল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর ও অবিলম্বে বিচার কাজ শুরু করার দাবি জানানোর মধ্যে দিয়ে আজ রোববার শাহজাদপুরে সমকালের স্থানীয় প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল হত্যার ২য় বার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে শাহজাদপুরে কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ দিনব্যাপি নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিল কালো পতাকা উত্তোলণ ও কালো ব্যাচ ধারণ, নিহতের কবর জিয়ারত ও তার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, শোক র‌্যালি, মানববন্ধন, স্মরণ সভা ও মিলাদ মাহফিল । সকাল ৯টায় শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবে কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাচ ধারণের মধ্যে দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে এক বিশাল শোক র‌্যালি বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোক র‌্যালিতে ঢাকা, পাবনা, সিরাজগঞ্জ থেকে আগত ও স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, নিহতের পরিবারের সদস্যবৃন্দ সহ নানা শ্রেণী পেশার শত শত মানুষ অংশ নেন। র‌্যালি শেষে উপজেলা পরিষদের শহীদ স্মৃতি সম্মেলন কক্ষে স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমকালের অতিরিক্ত বার্তা সম্পাদক তপন দাশ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ হাসিব সরকার ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুস্তাক আহমেদ। শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শফিকুজ্জামান শফির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি এ, এম, আব্দুল আজিজ, উপজেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম সাকলায়েন, থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কে, এম, রাকিবুল হুদা, পাবনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল হামিদ খান, সিরাজগঞ্জ প্রেস ক্লাবের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ও আরটিভির স্টাফ রিপোর্টার সুকান্ত সেন, সমকালের স্টাফ রিপোর্টার এ, বি, এম, ফজলুর রহমান, শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি বিমল কুন্ডু, সহ-সভাপতি আবুল কাশেম, সাংবাদিক আতাউর রহমান পিন্টু, এম, এ, জাফর লিটন, হাসানুজ্জামান তুহিন, আল-আমিন হোসেন, অধ্যক্ষ শহিদুল ইসলাম শাহিন, বিআরডিবি’র চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান, সাংস্কৃতিক কর্মী কাজী শওকত, সমকালের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি আমিনুল ইসলাম খান রানা, উল্লাপাড়া প্রতিনিধি কল্যাণ ভৌমিক, তাড়াশ প্রতিনিধি আতিকুল ইসলাম বুলবুল, রায়গঞ্জ প্রতিনিধি তাপস কুমার ঘোষ, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শেখ কাজল, যুবলীগ নেতা আশিকুল হক দিনার, স্বেচ্ছাসেবকলীগ আল-আমিন প্রমুখ। বক্তারা ক্ষোভের সাথে বলেন, দুই বছর অতিবাহিত হলেও সাংবাদিক শিমুল হত্যা মামলার বিচারিক কার্যক্রম শুরু হয়নি। উপরোন্তু একটি প্রভাবশালী মহল মামলাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তারা বলেন, গত বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি শিমুল হত্যা মামলাটি চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে গণ্য করে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের জন্য সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক সুপারিশ করে স্বরাষ্টমন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হলেও রহস্যজনক কারণে অদ্যবধি তা অনুমোদন করা হয়নি। এমনকি সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত বারবার চার্জ গঠনের দিন ধার্য করলেও আসামীপক্ষ নানা অযুহাতে সময়ের আবেদন করে বিচার কাজ শুরু করতে বিলম্বিত করছে। প্রধান আলোচক সমকালের অতিরিক্ত বার্তা সম্পাদক তপন দাশ বলেন, সমকাল শিমুলকে কখনও নিহত বলে না। পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু শিমুলকে লক্ষ্য করেই গুলি করে হত্যা করেছে। প্রভাবশালী মহলের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, সমকাল পরিবারের সাথে শত্রুতা সৃষ্টি করবেন না। তিনি দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলেন, যারা বানোয়াট একটি পাল্টা মামলা দায়ের করে এ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী হালিমুল হক মিরুর পক্ষ নিয়ে প্রভাব বিস্তার করে বিচার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করার চেষ্টা করছেন, তারা যত বড় শক্তিধর হোন, তাদের মুখোশ উন্মোচন করতেও আমরা কখনও পিছপা হবো না। সমকাল পরিবার সর্বশক্তি দিয়ে শিমুল হত্যাকান্ডের প্রকৃত বিচার আদায় করবে। এ ব্যাপারে কারো সাথে কোন আপোষ নয়। তিনি আরও বলেন, সমকাল সারাজীবন নিহত সাংবাদিক শিমুলের পরিবারের পাশে থাকবে। এর আগে স্মরণ সভায়্ উপস্থিত নানা শ্রেণী পেশার মানুষ শিমুলের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং তার আত্মার শান্তি কামনায় ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নিরাবতা পালন করেন। উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিক শিমুল শাহজাদপুর পৌর মেয়র (বর্তমানে বরখাস্তকৃত) হালিমুল হক মিরুর শর্টগানের গুলিতে মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুত্ব আহত হয়। পরদিন ৩ ফেব্রুয়ারি উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া থেকে ঢাকা নেয়ার পথে সে মারা যায়। এ ব্যাপারে শিমুলের স্ত্রী নুরুন্নাহার খাতুন বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে। দীর্ঘ তদন্ত শেষে পুলিশ ২০১৭ সালের ২ মে হালিমুল হক মিরুকে প্রধান আসামী করে ৩৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দেয়। প্রধান আসামী হালিমুল হক মিরু কারাগারে থাকলেও অন্য আসামীরা উচ্চ আদালত থেকে জামিনে মুক্ত রয়েছে। গত বছরের ২৫ জানুয়ারি শিমুল হত্যা মামলাটি শাহজাদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত (আমলি আদালত) থেকে সিরাজগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে (বিচারিক আদালত) স্থানান্তর করা হয়।
    সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, শাহজাদপুর ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৭:২৯ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 272 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    শাহজাদপুর অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    9538346
    ২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:১৮ পূর্বাহ্ন