তাড়াশে সেচের জন্য অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগে কৃষকদের বিক্ষোভ
২৬ আগস্ট, ২০১৯ ১২:২৭ অপরাহ্ন


  

  • তাড়াশ/ কৃষি ও খাদ্য:

    তাড়াশে সেচের জন্য অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগে কৃষকদের বিক্ষোভ
    ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৪:২২ অপরাহ্ন প্রকাশিত


    আশরাফুল ইসলাম রনি:
    সিরাজগঞ্জের তাড়াশে একটি গভীর নলকূপে চলতি বোরো ধানের আবাদে সেচের জন্য অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। আর অতিরিক্ত টাকা আদায়ের প্রতিবাদে ভুক্তভোগী কৃষকরা বিক্ষোভ করেছেন।
    ঘটনাটি ঘটেছে, বুধবার সকালে উপজেলার তালম ইউনিয়নের বড়ইচড়া গ্রামের ফসলি মাঠে।
    স্থানীয় কৃষকেরা অভিযোগ করেন, ওই গ্রামের ফসলি মাঠে একটি গভীর নলকূপে এলাকার প্রায় শতাধিক কৃষক ২শ ৫০ বিঘা জমিতে বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের আবাদ করেছেন। আর ওই গভীর নলকূপটি পরিচালনা করেন, বড়ইচড়া গ্রামের সাইদুর ইসলাম নামের এক ব্যক্তি।
    ওই গ্রামের কৃষক আব্দুল মাজেদ, আব্দুস সামাদ, জয়নাল উদ্দিন, আসলাম আলী, ফজলু রহমান, আব্দুল লতিফসহ একাধিক কৃষক জানান, বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফোরাম নামে একটি প্রতিষ্ঠান থেকে সাইদুর ইসলাম নামের ওই ব্যক্তি গভীর নলকূপটি লীজ নেন।
    তিনি লীজ নেবার পর সকল নিয়ম-কানুন ভঙ্গ করে অধিক লাভের আশায় কৃষকদের কাছ থেকে সেচ দেওয়ার জন্য বিঘা প্রতি ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকা জোর করে আদায় করছেন। কৃষক ফজলুর রহমান জানান, সেচ পরিচালনাকারী সাইদুর ইসলামের ধার্য্যকৃত টাকা না দিলে তিনি জমিতে সেচ দেওয়া বন্ধ করে দেবার হুমকি দিচ্ছেন। অথচ পাশ্ববর্তী বগুড়া জেলার শেরপুর, নাটোর জেলার সিংড়া, গুরুদাসপুরসহ অন্যান্য উপজেলায় এ ধরণের গভীর নলকূপে চলতি বোরো আবাদে সেচের জন্য এক বিঘা জমিতে কৃষকদের কাছ থেকে নেওয়া হয় ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকা। অপর দিকে বড়ইচড়া গ্রামের ওই ফসলি মাঠে সেচের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় গভীর নলকূপে আবাদ করা কৃষকেরা সেচ যন্ত্র পরিচালনাকরী পরিচালক সাইদুর ইসলামকে  অতিরিক্ত টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। এদিকে নিরুপায় কৃষকেরা অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার প্রতিবাদে জমির আইলে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ করেছেন এবং ভুক্তভোগী কৃষকেরা সেচের জন্য অতিরিক্ত টাকা নেওয়া বন্ধ করতে সংশ্লিষ্ট বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। অতিরিক টাকা নেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে সেচের পরিচালক সাইদুর ইসলাম বলেন, কৃষকদের অভিযোগ সত্য নয়।
    এ প্রসঙ্গে তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাইফুল ইসলাম জানান, গভীর নলকূপ সেচের জন্য বোরো আবাদে ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকাই যথেষ্ট। বিষয়টি তিনি জেনে দ্রুত ব্যবস্থা নেবেন।

     

    স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট, তাড়াশ ০৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ০৪:২২ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 263 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    তাড়াশ অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট

    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    11107598
    ২৬ আগস্ট, ২০১৯ ১২:২৭ অপরাহ্ন