বেলকুচিতে ১৮ ফুট সড়কে ৬ ফুট হকারদের দখলে, প্রশাসন নিরব
২২ জুলাই, ২০১৯ ০৬:৫০ অপরাহ্ন


  

   সর্বশেষ সংবাদঃ

  • বেলকুচি/ জনদুর্ভোগ:

    বেলকুচিতে ১৮ ফুট সড়কে ৬ ফুট হকারদের দখলে, প্রশাসন নিরব
    ২১ মার্চ, ২০১৯ ০২:৫৬ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    জহুরুল ইসলামঃ সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে ১৮ ফুট সড়কের ৬ ফুট দখল করে দীর্ঘ দিন ধরে বানিজ্যিক কর্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় হকাররা। বেলকুচি পৌর এলাকাস্থ মুকুন্দগাঁতী ঢালু থেকে শুরু করে সোহাগপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত অতিব্যস্ত জনপদ হিসাবে পরিচিত। প্রতিদিন এই অাঞ্চলিক সড়কটি ব্যবহার করে হাজার হাজার শিক্ষার্থী স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় যায়। এছাড়াও বাস-ট্রাক, সিএনজি, আটোভ্যান, ব্যাটারী চালিত রিক্সা, মটরসাইকেল সহ নানা রকম যানবহন ব্যবহার করে বেলকুচি উপজেলার কান্দাপাড়া, দৌলতপুর,বলরামপুরসহ উলাপাড়া ও শাহাজাদপুর উপজেলায় যাতায়াত করে ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজন। বানিজ্যিক এলাকা হিসাবে বিশেষ খ্যাতি থাকার কারনে মুকুন্দগাতী বাজারে জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ক্রেতারা কেনাকাটা করার জন্য আসেন। দিনে ও রাতে সমহারে ব্যস্ত থাকা জনপদটির যে সড়কটি প্রধান সেটা মাত্র ১৮ ফুট হওয়ায় প্রতিনিয়ত আটোভ্যান সহ বিভিন্ন যানবাহনদ্বারা যানজট লেগেই থাকে। ১৮ ফুট সড়কের ২দ্বারে ৬ ফুট স্থানীয় প্রভাবশালী হকারদের দখলে। এই সড়কের জায়গা দখল করে তারা বিভিন্ন বানিজ্যিক কাজ পরিচালনা করে আসছে। এতে স্থানীয় প্রশাসনে নেই কোন তৎপরতা বা সড়ক দখল মুক্ত করে যাতায়াতের ব্যবস্থাকে তরান্বিত করার উদ্যোগ। মুকুন্দগাঁতী বাজারে কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতারা বলেন, মুকুন্দগাঁতী ঢালু থেকে শুরু করে কবরস্থান পর্যন্ত অপরদিকে সোহাগপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গেট থেকে চক সোহাগপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত সব সময় যানজট লেগেই থাকে। সড়কের যানজটের প্রধান কারন হচ্ছে ২ দ্বারে অবৈধ ভাবে গড়ে ওঠা হকারদের দোকান। এমনিতেই চাহিদা তুলনায় সড়কটি অপ্রসস্থ। আর এসব দোকান থাকার কারনে আমরা ঠিক মত চলাফেরা করতে পারি না। সব সময় যানজট লেগেই থাকে। আমরা এই যানজট নিরসনের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। সড়কের উপরে ব্যবসাকারী হকারেরা জানায়, আমরা সড়কের পাশে ব্যবসা করি মাসে ১৫শ থেকে ২ হাজার টাকা দিয়ে। তবে বিশেষ কোন কারনে আমাদের এককালীন বড় অংকের টাকা দিতে হয় বাজার ইজারাদারসহ বিভিন্ন মহলকে। এ বিষয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম সাইফুর রহমানের সাথে কথা বলে জানা যায়, বেলকুচিতে যে সকল অবৈধ স্থাপনাসহ দোকান-পাঠ আছে তা খুব দ্রুত মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে।
    স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বেলকুচি ২১ মার্চ, ২০১৯ ০২:৫৬ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 552 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    বেলকুচি অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    বিশ্বকাপ ক্রিকেট

    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    10686711
    ২২ জুলাই, ২০১৯ ০৬:৫০ অপরাহ্ন