কাজিপুর পৌরসভা- বাতির নিচে অন্ধকার
২২ আগস্ট, ২০১৯ ০৬:৪৯ অপরাহ্ন


  

  • কাজিপুর/ জনদুর্ভোগ:

    কাজিপুর পৌরসভা- বাতির নিচে অন্ধকার
    ০৪ জুন, ২০১৯ ০৭:৫৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত

    সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টারঃ নানা অনিয়ম আর অব্যবস্থাপনায় পরিচালিত কাজিপুর পৌরসভার কার্যক্রম। দেড় যুগ পূর্বে  নেতা মোহাম্মদ নাসিম (ওই সময়ে স্বারাষ্ট্রমন্ত্রি) সাহেবের একান্ত প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত এই সেবামূলক প্রতিষ্ঠানটি জনগণের সেবা দিতে নানাভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে চলেছে। 
    গত সোমবার সরেজমিন পৌরসভা ভবনে গিয়ে দৃশ্যমান নানা অব্যবস্থাপনা চোখে পড়েছে। প্রতিবছর পৌরসভার বাজেটে শোভা বর্ধনের এবং বিশেষ দিনগুলোতে আলোকসজ্জাকরণের জন্যে ব্যয় বরাদ্দ রাখা হয়। কিন্তু তার সঠিক ব্যবহার হয়না। আগামীকাল বুধবার (চাঁদ দেখা সাপেক্ষে) পবিত্র ইদুল ফিতর পালিত হবে। অথচ পৌরভবনের সামনে বৃষ্টির এক হাঁটু পরিমাণ পানি জমে আছে। আর আগাছা দখল করে নিয়েছে পুরো ভবনের চারপাশ। ভবনের সামনেই দীর্ঘদিন যাবৎ বালি স্তূপাকারে রাখা হয়েছে। পৌরভবনে বাগানের জন্যে বরাদ্দ রাখা হলেও তার ছিটেফোটাও চোখে পড়েনি। 
    সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় রয়েছে সরকার প্রদত্ত কোটি টাকার অনেক সস্পদ। দুইদিকে ব্যবহারযোগ্য একেবারে নতুন একটি ড্রেজার মেশিন  পড়ে রয়েছে বাইরে। তার একটি অংশ খুলে পৌরভবনের একেবারে সামনে ফেলে রাখা হয়েছে। বৃষ্টিতে ভিজে আর রোদে পুড়ে তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। দুটো ট্রাকসহ আরও একটি ড্রেজার মেশিন অযতেœ বাইরে পড়ে থাকায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। 
     পৌরভবনের নামফলকটিও করে দিয়েছে গ্রামীণ ফোন । সেই ফলকের সামনে যে সিটিজেন চার্টারটি রয়েছে সেখানে জনগনের কোন কথাই লেখা নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কমিশনার জানান, অনেক আগেই এই চার্টারের লেখা মুছে গেছে। কিন্তু মেরামতের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। 
     খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিবছর পৌরসভার যে বাজেট পেশ করা হয় সেখানে সাধারণ জনগণের কোন অংশগ্রহণ থাকে না। এছাড়া  পৌরসভার টেন্ডার এবং আদায়কৃত ট্যাক্স নিয়েও অনেক ঝামেলা হয় বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে। 
     সরেজমিন আর দেখা গেছে, সোমবার গরিব-দুঃস্থ পৌরবাসির জন্যে ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে 
    বরাদ্দকৃত চাল বিতরণের সময় পৌর মেয়র কিংবা পৌর সচিব কাউকেই দেখা যায়নি। অভিযোগ রয়েছে চাল বিতরণে সুবিধাভোগী নির্ধারণেও। অশীতিপর এক বৃদ্ধ মহিলা এই প্রতিবেদকের সামনে এসে তার ক্ষোভের কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এসময় পৌর কমিমনার রোকন উদ্দিন ওই মহিলাকে কিছু টাকা দিয়ে বিদায় করেন।
     এসব বিষয়ে কথা বলতে বারবার ফোন করেও পৌর মেয়র হাজী নিজাম উদ্দিন কে পাওয়া যায়নি। 

     

    স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,কাজিপুর ০৪ জুন, ২০১৯ ০৭:৫৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 236 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    কাজিপুর অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট

    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    11063500
    ২২ আগস্ট, ২০১৯ ০৬:৪৯ অপরাহ্ন