নৌকা কেনা বেচার হাট
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন


  

  • জাতীয়/ অন্যান্য:

    নৌকা কেনা বেচার হাট
    ১২ জুন, ২০১৯ ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন প্রকাশিত

    হাওর বেষ্টিত জেলার দ্বীপ সাদৃশ্য গ্রামগুলো বর্ষায় কাঠের তৈরি নৌকা একটি অপরিহার্য পরিবহন ব্যবস্থা। বর্ষায় নৌকা ছাড়া কল্পনা করা যায় না চলা চলে। ফলে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার কাউকান্দি বাজারে নৌকা কেনা বেচার হাট বর্ষার শুরুতেই জমজমাট হয়ে উঠেছে প্রতি বছরের মত।

    সাপ্তাহে ২দিন শনি ও মঙ্গলবার নৌকার হাট বসে। তাহিরপুরসহ পার্শ্ববর্তী বিশ্বম্ভরপুর,জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা ও মধ্যনগড় থানার বিভিন্ন গ্রামের লোকজন নৌকা কেনার জন্য ছুটে আসেন এহাটে।

    জানাযায়,হাওর বেষ্টিত সুনামগঞ্জ জেলার ১১টি উপজেলার মধ্যে তাহিরপুর উপজেলা একটি। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ২৫১টি গ্রামের ৩লক্ষাধিক পরিবারের লোকজন বসবাস করছে। বর্ষার মৌসুমে ওইসব গ্রাম গুলোর ঘর থেকে বের হয়ে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াতে সড়ক পথের সুব্যবস্থা না থাকায় এখনও একমাত্র কাঠের তৈরি নৌকার উপর নির্ভরশীল সবাই। বর্ষায় নৌকা ছাড়া এক মুর্হুত কল্পনা করতে পারে না হাওর পাড়ের মানুষজন। ফলে নাগরিক জীবনে কদর বেড়েছে কাঠের তৈরি এ বাহনটির। তাই বর্ষার মৌসুমে অনেকে এই পেশাকে কাজে লাগিয়ে নৌকা তৈরী করে ও বিক্রি করে বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করে। স্থানীয় দক্ষিন বড়দল ইউনিয়নের কাউকান্দি ও চতুভুজ গ্রামের রেজাউল,আয়নাল হক,শাহ জামালসহ ১৫জন নৌকার কারিগর জীবিকা নির্বাহ করছেন। তারাই বাজারে নিয়ে নৌকা বিক্রি করেন। আর নৌকা বিক্রি করার জন্য অনেক পরিচিতি লাভ করেছে কাউকান্দি বাজার।

     

    নৌকা বিক্রি করতে আসা নৌকা কারিগর ও বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে যানাযায়-পুরাতন নৌকা ঠিক করতে ১৮০০-২২০০টাকা খরচ হয়। আর বিক্রিয় করা হচ্ছে ২৮০০থেকে ৩৫০০টাকায় ভাল নৌকা আরো বেশী। আর নতুন নৌকা তৈরি করতে ৪-৫হাজার টাকা খরচ হয় বিক্রিয় হয় ৬০০০-৬৫০০টাকার বেশী। গাছের দাম বেশি থাকায় নৌকা তৈরি করে লাভ হচ্ছে কম। এবছর নৌকার দাম অন্যান্য বছরের তুলনায় খুব কম হওয়ায় তাদের লাভও কম।

    কাউকান্দি বাজারের ব্যবসায়ী মাহবুব রহমান জানান, এখানে নৌকার হাট বসে সাপ্তাহে শনি ও মঙ্গলবার দুদিন। প্রতি বাজারে বেচা কেনা ভালই হয়। নৌকার ধরণ অনুযায়ী বিক্রিতা ও ক্রেতাগন নৌকার দাম নির্ধারন করেন। এখানে সবোর্চ্ছ ২০হাজার টাকার নৌকাও বিক্রি হয়। নৌকা বিক্রি করে অনেকেই জীবিকা নির্বাহ করছে। আর এই বাজারটি নৌকার হাট হিসাবে পরিচিতি ও পেয়েছে ব্যাপক। নৌকা বেচাঁ-কেনা ঘাটের ইজারাদার বাচ্ছু মিয়া জানান,উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের লোকজন হাট বাজার,স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসায় ও উপজেলা সদরে আসা যাওয়া ও বর্ষার ৬মাস জীবিকার তাগিদে উন্মক্ত জলাশয়ে মাছ ধরার জন্য নৌকা একটি অতি প্রয়োজনীয় মাধ্যম। ফলে মানুষ নৌকা কিনেন বাধ্য হয়ে। এবার নৌকা বাজারে থাকলেও নৌকার দাম অনেক কম। কারন হিসাবে তিনি জানান,এলাকায় লোকজন সবাই শহর মুখি হয়েছে কাজের সন্ধানে।

    নৌকার হাটে আসা তাহিরপুর উপজেলার মৎসজীবি সবুজ মিয়াসহ অনেকের সাথে কথা বলে যানাযায়-তারা মাছ ধরার জন্য প্রতি নতুন বছর নৌকা কেনেন আর পুরনো নৌকা গুলো কম মূল্যে বিক্রি করেন। এই উপজেলায় মানুষ ৬মাস থাকে পানি বন্দী একারনে বসে থাকে না হাওরবাসী মাছ ধরার কাজে থাকে ব্যস্ত আর অন্যান্য কাজে আর একারনেই নৌকা তাদের প্রধান হাতিয়ার।

    নিউজরুম ১২ জুন, ২০১৯ ০৯:৪০ পূর্বাহ্ন প্রকাশিত হয়েছে এবং 200 বার দেখা হয়েছে।
    পাঠকের ফেসবুক মন্তব্যঃ
    Expo
    Slide background EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech EduTech
    Slide background SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech SaleTech EduTech
    জাতীয় অন্যান্য খবরসমুহ
    সর্বশেষ আপডেট
    নিউজ আর্কাইভ
    ফেসবুকে সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ
    বিজ্ঞাপন
    সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ ফোকাস
    • সর্বাধিক পঠিত
    • সর্বশেষ প্রকাশিত
    বিজ্ঞাপন

    ভিজিটর সংখ্যা
    11391803
    ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন