সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ সিরাজগঞ্জের সব খবর, সবার আগেঃ SirajganjKantho.com

www.SirajganjKantho.com

তাড়াশে মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে মৃত ব্যাক্তিকে ভোটার করায় আদালতে মামলা দায়ের
স্টাফ করেস্পন্ডেন্ট, তাড়াশ ২৬-০৩-২০১৯ ১০:১১ পূর্বাহ্ন প্রকাশিতঃ প্রিন্ট সময়কাল Dec 10, 2019 04:11 PM

তাড়াশ প্রতিনিধি:
সিরাজগঞ্জের তাড়াশে মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠন করার লক্ষে নির্বাচনে তপশীল সংক্রন্ত অবৈধ রেজুলেশন ,মৃত ব্যাক্তিকে অভিভাবক করে ভোটার তালিকা চুরান্ত করে বেআইনিভাবে নির্বাচনী তপশীল ঘোষনা করায় স্কুল কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকসহ সাতজনকে আসামী করে সিরাজগঞ্জ তাড়াশ সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন মাহফুজুল হক নামে এক অভিভাবক সদস্য। মামলা নং ৬/১৯,তারিখ: ২১-০৩-১৯।
মামলা সুত্রে জানা যায়, উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নে মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় ভুমিদাতা ,দাতা সদস্য ও বিদ্যোৎসাহী ব্যাক্তিগনের অনুদানে স্থাপিত হয়। গত ২০১৮ সালের তারিখে নভেম্বরে মাসে রেজুলেশনের মাধ্যমে এ্যাডহক কমিটি গঠন করিয়া বিদ্যালয় পরিচালিত হয়ে আসছে। কিন্তু ২০১৯ সালে ৩১ মার্চের অভিভাবক প্রতিদ্বন্দগনের যে চুরান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। তাতে ত্রুটিপুর্ন স্কুলের প্রধান শিক্ষক এর যোগসাজসে নাইম হাসান নামের এক ছাত্রের পিতা মৃত মিজানুর রহমান মনিকে জীবিত দেখিয়ে ভোটার করা হয়েছে। যার ভোটার নাম্বার ১৮৫, ছাত্রের রোল নং ৩৯। মালা আরো উল্লেখ্য করা হয়েছে যে, অত্র বিদ্যালয়ের ঐ্যাডহক কমিটি কোন প্রকার রেজুলেশন না করিয়া ও প্রচার-প্রচারনা এবং দাতা সদস্য সংগ্রহ না করিয়া বেআইনিভাবে অভিভাবক সদস্য নির্বাচন তপশীল করা হয়েছে। তাছাড়া কমিটিতে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচনের জন্য কোন প্রকার রেজুলেশন ,প্রচার করে নাই। অপরদিকে মাটিয়া-মালীপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনকল্পে নির্বাচনী তপশীল ২০১৯ এর ক্রমিক -১ এ মনোনয়নপত্র বিতরণ ,গ্রহন ও জমা ১৪-০৩-১৯ তারিখ হতে ১৬-০৩-১৯ পর্যন্ত মনোনয়ন পত্র জমা দেয়ার উল্লেখ্য করা হলেও তা বেসরকারী স্কুলম কলেজ মাদ্রাসা পরিচালনা বিধি-বিধান সঠিকভাবে অনুসরন করা হয় নাই।
মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এস.এম রুহুল আমিন বলেন, ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানান সম্ভব হয়নি।
তাড়াশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফকির জাকির হোসেন বলেন, মৃত ব্যাক্তিকে ভোটার করা বা প্রচার প্রচারনা না করার দায়ভার প্রিজাইডিং অফিসারের এ বিষয়ে আমার কোন দায় নেই।
মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ভোটার চুরান্ত করার বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ভাল বলতে পারবেন।
প্রসঙ্গত, গত ৭-১১-১৪ ইং সালে মাটিয়া-মালিয়া পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচন করতে গেলে অভিভাবকরা উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে লাঞ্চিত করেন। সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলিশ নিয়ে তাদের উদ্ধার করতে গেলে তিনিও অভিভাবকদের তোপের মূখে পড়েন। তাড়াশ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম রেজা বলেন,গত ১লা নভেম্ববর উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের মাটিয়া মালি পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির ৯ সদস্য নির্বাচিত হয়।
বৃহস্পতিবার বিকালে সভাপতি নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত ছিল। সে মোতাবেক  মিটিং শুরু হলে সভায় নির্বাচিত মাত্র ৪ জন সদস্য উপস্থিত হয় । কোরাম সংকট হওয়ায় নির্বাচন করতে অস্বীকৃতি জানালে এডহক কমিটির সভাপতি ও সভাপতি প্রার্থী মোফাজ্জল হোসেন আমাকে চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা বহিরাগত লোকজন জমায়েত করে পরিস্থিতি উতপ্ত তৈরি করে এবং নির্বাচনের পরিচয়পত্র সহ অনান্য কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে আমাকে জিম্মি করে রাখেন। সংবাদ পেয়ে ইউএনও স্যার পলিশ নিয়ে গিয়ে তাদেও রোষানল থেকে আমাকে উদ্ধার করেন। এ সময় ইউএনও স্যারের উপরও চড়াও হয়।
 সাবেক তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জিল্লুর রহমান খাঁন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে উপজেলা মাধ্যমিক  শিক্ষা অফিসারকে উদ্ধার করতে গেলে মোফাজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে জমায়েত হওয়া লোকজন আমাকেও বে-কায়দায় ফেলেছিল। এ ঘটনায় তাড়াশ থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

 



২৬-০৩-২০১৯ ১০:১১ পূর্বাহ্ন প্রকাশিত
http://sirajganjkantho.com/cnews/newsdetails/20190326101104.html
© সিরাজগঞ্জ কন্ঠ, ২০১৬     ||     A Flashraj IT Initiative