সিরাজগঞ্জ কণ্ঠঃ সিরাজগঞ্জের সব খবর, সবার আগেঃ SirajganjKantho.com

www.SirajganjKantho.com

শসা চাষে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছে কৃষক
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, টাংগাইল ১৩-০৫-২০১৯ ০৩:৫৫ অপরাহ্ন প্রকাশিতঃ প্রিন্ট সময়কাল Sep 18, 2019 10:40 PM

মাসুদ রানা,নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: নাগরপুরে অতি অল্প সময়ে শসা চাষ করে সাবলম্বী হয়েছেন উপজেলার মোকনা, পাকুটিয়া ও মামুদনগরের প্রান্তিক চাষীরা। উচ্চ ফলনশীল জাতের হাইব্রিড আলাভী /৩৫ ও কাশিন্দা জাতের শসা চাষ করে এ এলাকার চাষীরা এখন স্বাবলম্বী। বেটুয়াজানী গ্রামের চাষী রফিক মিয়া ২ বিঘা জমিতে গত ফেব্রæয়ারী মাসে শসা চাষ শুরু করে এ পর্যন্ত ৩ শত মন শসা বিক্রি করেছেন । আরো ২শত থেকে আড়াই’শ মন শসা বিক্রি হবে বলেও দাবী করেন তিনি । শসা চাষে এ এলাকার চাষীদের সাফল্য দেখে উপজেলার অন্য এলাকার চাষীরাও শসা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তাই বেটুয়াজানী, লাড়–গ্রাম, পারবাইজোড়াসহ আশ পাশের গ্রামগুলোতে ব্যাপক সাড়া পরেছে শষা চাষ।

নবগ্রামের কৃষক সুকুমার, পার্শ্ববর্তী নরদহি গ্রামের বাদল মিয়া জানান, আমরা অন্যান্য কৃষকদের মতই সাধারন ফসলের চাষ করতাম । তবে এখন উপজেলার কৃষি অফিসারদের পরামর্শে ও বিভিন্ন বীজ কোম্পানীদের তত্বাবধানে আমরা বিভিন্ন লাভজনক সবজি চাষে আগ্রহী হয়েছি। সুকুমার আরও বলেন, আমি এবার শসার সাথে সাথী ফসল হিসেবে করলা চাষ করে সফলতা পেয়েছি। বেটুয়াজানী গ্রামের চাষী রফিক মিয়া বলেন, আমি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ফসল আবাদ করলেও, এই শষা চাষকরে যে সাফল্য অর্জন করেছি তা অবাক করারমত। আমার শষা চাষ দেখতে অনেকেই আমার ক্ষেতে আসলে আমি চাষের পদ্ধতীসহ এর পরিচর্যার খুটিনাটি বিষয় বুঝিয়ে দেই অকৃপন ভাবে। আগামী বছর গুলোতে এই এলাকার আরো অনেকেই শসা চাষ করবেন বলে তিনি জানান।

নাগরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বিএম রাশেদুল আলম জানান, নাগরপুর উপজেলার কৃষকরা সবজি চাষে তেমন একটা আগ্রহী ছিলেন না। আমাদের বøক সুপার ভাইজারদের অনুপ্রেরনা, বিভিন্ন বীজ কোম্পানীর পরামর্শ এবং সর্বোপরি আমাদের বিভিন্ন সময়ের প্রশিক্ষন পেয়ে কৃষকরা এখন বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে। উপজেলার ধলেশ্বরী নদী বিধৌত মোকনা ও পাটুটিয়ার কৃষকরা ক্ষতিকর তামাক চাষ বাদ দিয়ে করলা, টমেটো ও শসা সহ বিভিন্ন সবজি চাষে ঝুকছে। আর এ অঞ্চলের কৃষকদের সফলতা দেখে উপজেলার অন্য এলাকার কৃষকরাও সবজি চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে।



১৩-০৫-২০১৯ ০৩:৫৫ অপরাহ্ন প্রকাশিত
http://sirajganjkantho.com/cnews/newsdetails/20190513155516.html
© সিরাজগঞ্জ কন্ঠ, ২০১৬     ||     A Flashraj IT Initiative